ভারতের উত্তর প্রদেশের উন্নাও জেলায় এক হাতুড়ে ডাক্তারের বিরুদ্ধে একই সিরিঞ্জ ব্যবহার করে ইনজেকশন দিয়ে ২১ ব্যক্তিকে এইচআইভি ভাইরাসে আক্রান্ত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। হাতুড়ে ওই চিকিসকের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে বলে সোমবার কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে এনডিটিভির এক প্রতিবেদন"> ভারতের উত্তর প্রদেশের উন্নাও জেলায় এক হাতুড়ে ডাক্তারের বিরুদ্ধে একই সিরিঞ্জ ব্যবহার করে ইনজেকশন দিয়ে ২১ ব্যক্তিকে এইচআইভি ভাইরাসে আক্রান্ত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। হাতুড়ে ওই চিকিসকের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে বলে সোমবার কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে এনডিটিভির এক প্রতিবেদন" />

একই সিরিঞ্জ ব্যবহারে ভারতে ২১ জন এইডস আক্রান্ত

একই সিরিঞ্জ ব্যবহারে ভারতে ২১ জন এইডস আক্রান্ত

ভারতের উত্তর প্রদেশের উন্নাও জেলায় এক হাতুড়ে ডাক্তারের বিরুদ্ধে একই সিরিঞ্জ ব্যবহার করে ইনজেকশন দিয়ে ২১ ব্যক্তিকে এইচআইভি ভাইরাসে আক্রান্ত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। হাতুড়ে ওই চিকিসকের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে বলে সোমবার কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে এনডিটিভির এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে। খবর বিডিনিউজের।


উন্নাওতে এইচআইভি আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে যাওয়ার ঘটনায় উদ্বিগ্ন স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের একটি তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনে একই সিরিঞ্জ ব্যবহার করার ঘটনাটি উঠে আসে বলে শহরের প্রধান চিকিসা কর্মকর্তা ড. এসপি চৌধুরী জানিয়েছেন। তিনি বলেন, “আক্রান্তের সংখ্যা বেশি দেখে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় দুই সদস্যের তদন্ত কমিটি করে যারা বানগারমাউ এলাকার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখে এর কারণ উদঘাটন করে।” তদন্ত দল ওই এলাকার প্রেমগঞ্জ ও চকমিরপুর ঘুরে ২৪, ২৫ ও ২৭ জানুয়ারি তিনটি স্থানে হওয়া মেডিকেল ক্যাম্পের ভিত্তিতে একটি তদন্ত প্রতিবেদন দেয়। “ক্যাম্পে ৫৬৬ জনকে পরীক্ষা করে তাদের মধ্যে ২১ জনকে এইচআইভিতে আক্রান্ত হিসেবে পাওয়া যায়,” বলেন এসপি চৌধুরী।


তদন্ত প্রতিবেদনে হাতুড়ে ডাক্তার রাজেন্দ্র কুমারের নামে অভিযোগ আনা হয়; বানগারমাউর পাশের একটি গ্রামের বাসিন্দা রাজেন্দ্র কম খরচে চিকিসার নামে একটি মাত্র সিরিঞ্জ দিয়ে অসংখ্য ব্যক্তিকে ইনজেকশন দিয়ে আসছিল। “এ কারণেই এইচআইভি আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে যায়,” বলেন প্রধান চিকিসা কর্মকর্তা। হাতুড়ে চিকিসক রাজেন্দ্রর বিরুদ্ধে বানগারমাউ থানায় মামলা করা হয়েছে; এইচআইভি আক্রান্তদের কানপুরের এন্টিরেট্রোভাইরাল থেরাপি সেন্টারে পাঠানোর পরামর্শ দেওয়া হয়েছে বলেও জানান তিনি। ওই থেরাপি সেন্টারে ভাইরাসটির বিস্তৃতি ও সংক্রমণ ঠেকাতে এন্টিরেট্রোভাইরাল ওষুধ ব্যবহার করা হয়। উত্তর প্রদেশের স্বাস্থ্যমন্ত্রী সিদ্ধার্থ নাথ সিং ঘটনার তদন্তের বিষয়ে সাংবাদিকদের জানান। যথাযথ অনুমোদন ছাড়া কারা ইনজেকশন বিক্রি করছে সে বিষয়েও তদন্ত করা হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।


Warning: file_get_contents(http://www.sandwipnews24.com/temp/.php): failed to open stream: HTTP request failed! HTTP/1.1 404 Not Found in /home/sandwipnews/public_html/m/news_details.php on line 77

Warning: Invalid argument supplied for foreach() in /home/sandwipnews/public_html/m/news_details.php on line 79