কুরবানির জন্য সুস্থ ও ভালো পশু চেনার উপায়

কুরবানির জন্য সুস্থ ও ভালো পশু চেনার উপায়

কুরবানির জন্য সুস্থ ও ভালো পশু চেনার উপায়


আগামী ২২ আগস্ট  পবিত্র ঈদুল আযহা।  এরই মধ্যে  জমতে শুরু করেছে কোরবানির পশুর হাট। হাটগুলো ভরে উঠবে নানা আকারের গরু-ছাগলে। এতো পশুর মধ্য থেকে নিজের মনের মতো একটি ভালো পশু কেনা সহজ নয়। কৃত্রিমভাবে স্টেরয়েড খাইয়ে মোটাতাজা করা পশুর বিশেষ করে গরুর ভিড়ে সত্যিকার স্বাস্থ্যবান ও সুস্থ্ গরু চেনা একটু কঠিন বটে। তবে কিছু বিষয় খেয়াল করলে ভালো গরু চিনে নেওয়া সম্ভব।

স্টেরয়েড দিয়ে মোটা তাজা করা গরু স্বাস্থ্যের জন্য কেন ক্ষতিকর বিধায়  বিশেষজ্ঞরা স্টেরয়েডে মোটাতাজা করা গরু না খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন। কারণ এ ধরণের গরুর মাংস খেলে হতে পারে নানান জটিল রোগ। ষ্টেরয়েড দিয়ে মোটা বানানো গরুর মাংসে থাকে অতিরিক্ত ষ্টেরয়েডযুক্ত পানি। যা স্বাস্থ্যের মারাত্মক ক্ষতি করে। কোরবানির ২০ থেকে ২৫ দিন আগে অসাধু ব্যবসায়ীরা প্রতিটি গরুকে এক সাথে ২০ থেকে ৩০টি পর্যন্ত ট্যাবলেট খাওয়ান। ইনজেকশনও দেওয়া শুরু করেন। এতে গরু অতি দ্রুত মোটা হয়ে ওঠে। অতিরিক্ত হরমোন খাওয়ানো গরুর মাংস থেকে আগুনেও হরমোনমুক্ত হয় না।

এ বিষয়ে বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ হল,  অতিমাত্রায় হরমোন ব্যবহার করলে গরুর শরীরে ব্যাপক পানি জমে। এতে গরু মোটাতাজা দেখায়। কিন্তু গরু র কিডনি, লিভার ও পাকস্থলি নষ্ট হয়ে যায়। এই গরুর মাংস খেলে মানবদেহে নানা ধরনের শারীরিক জটিলতা দেখা দিতে পারে।

নিচের বিষয়গুলোর মাধ্যমে ভালো গরু চিনে নেওয়া সম্ভব:
১। স্টেরয়েড ট্যাবলেট খাওয়ানো বা ইনজেকশন দেয়া গরু হবে খুব শান্ত। ঠিকমতো চলাফেরা করতে পারবে না। পশুর ঊরুতে অনেক মাংস মনে হবে।
২। অতিরিক্ত হরমোনের কারণে পুরো শরীরে পানি জমে মোটা দেখাবে। আঙ্গুল দিয়ে গরুর শরীরে চাপ দিলে সেখানে দেবে গিয়ে গর্ত হয়ে থাকবে।
৩। গরুর মুখের সামনে খাবার ধরলে যদি নিজ থেকে জিব দিয়ে খাবার টেনে নিয়ে খেতে থাকে তবে বোঝা যাবে গরুটি সুস্থ। যদি অসুস্থ হয়, তবে সে খাবার খেতে চায় না।
৪। সুস্থ গরুর পিঠের কুঁজ মোটা ও টান টান হয়।
৫।  বিশেষ করে যে গরুর পা ও মুখ ফোলা, শরীর থলথল করবে, অধিকাংশ সময় গরু ঝিমাবে, সহজে নড়াচড়া করবে না। এসব গরু অসুস্থতার কারণে সবসময় নিরব থাকে। ঠিকমতো চলাফেরা করতে পারে না। খাবারও খেতে চায় না।
৬। সুস্থ গরু জাবর কাটে বিধায় নাকের উপর ভিজা ভিজা থাকবে।



কোরবানির উপযুক্ত পশু:
১। কোরবানির জন্য দুই বছরের কম বয়সের গরু বা মহিষ এবং ১ বছরের কম বয়সের ছাগল বা ভেড়া কোনভাবেই উপযুক্ত নয়।
২। শিং ভাঙ্গা আছে কিনা, লেজ, মুখ, দাঁত, খুর এসব কিছুই ভালমত পরীক্ষা করে দেখুন। পশু কেনার আগে এর শরীরের কোথাও ক্ষত চিহ্ন আছে কিনা তা ভালভাবে দেখে নিতে হবে।৩। গাভী না কেনাই ভালো। গাভী কিনতে হলে কেনার আগে নিশ্চিত হয়ে নিতে চেষ্টা করুন গাভীটি গর্ভবতী কিনা। গর্ভবতী গরু কিন্তু কোরবানি দেয়া যায় না।

পরামর্শ:
১। দিনের আলো থাকত থাকতেই গরু কিনে ফেলুন, কারণ রাতের বেলায় অনেক সময় রোগাক্রান্ত গরু দেখে বুঝতে অসুবিধা হতে পারে।
২। মোটা গরু মানেই কিন্তু সুস্থ গরু নয়। মোটা গরুতে চর্বি অনেক বেশি হয়, যা খাওয়ার পর মানুষের স্বাস্থ্যের ঝুঁকি অনেক বেড়ে যায়। আর এ ধরণের অস্বাভাবিক মোটা গরু কিন্তু বিভিন্ন ওষুধ প্রয়োগ করেও মোটাতাজা করা হতে পারে। তাই সাবধান থাকুন।
৩। দেশি গরু কিনতে চেষ্টা করুন। কারণ সীমান্ত পার হয়ে আসা গরুগুলো অনেক দূর থেকে আসে বলে ক্লান্ত হয়, আর অনেক সময় ছোট-খাট আঘাতপ্রাপ্তও হয়। আর দুর্বল গরু সুস্থ নাকি অসুস্থ সেটা বোঝা বেশ কষ্টকর।
৪। সঠিক এবং নির্দিষ্ট জায়গায় গরু জবাই করুন। চামড়া ভালভাবে ছাড়িয়ে নিন যাতে নস্ট বা কেটে না যায়।  রক্ত, ছোট বর্জ্য ইত্যাদি নালা নর্দমায় না ফেলে মাটিতে পুতে ফেলুন। নাড়ীভুঁড়ি নির্দিষ্ট স্থানে রাখুন যাতে পরিছন্নকর্মিগন সহজে তুলে নিয়ে যেতে পারে। সাধ্যমত গরীব অসহায়দের মাঝে কোরবানীর মাংস বিরতণ করুন।

কোরবানী একটি ইবাদত।  সকলের কোরবানী কবুল হউক।

More News

Warning: file_get_contents(http://www.sandwipnews24.com/temp/.php): failed to open stream: HTTP request failed! HTTP/1.1 404 Not Found in /home/sandwipnews/public_html/m/news_details.php on line 77

Warning: Invalid argument supplied for foreach() in /home/sandwipnews/public_html/m/news_details.php on line 79